Home » SMARTPHONE – স্মার্টফোন

SMARTPHONE – স্মার্টফোন

স্মার্টফোন কি ?

স্মার্টফোন হ’ল সেই সব মোবাইল যাদের হার্ডওয়্যার এবং প্রসেসিং করার ক্ষমতা সাধারণ মোবাইল ফোনের থেকে বহুগুণ বেশি। 

এটি আপনাকে ফোন-কল করা এবং SMS পাঠানর ছাড়াও আরও অনেক কিছু করতে দেয়। যেমন  ইন্টারনেট ব্রাউজ করা এবং একটি কম্পিউটারের মতো সফটওয়্যার প্রোগ্রাম ও চালান সম্ভব।

স্মার্টফোনে উপস্থিত আধুনিক হার্ডওয়্যার, সফ্টওয়্যার এবং মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম এর জন্য “মোবাইল কম্পিউটিং” করা সম্ভব হয়। মাল্টিটাস্কিং বা অনেক কাজ এক সঙ্গে করার ক্ষমতা  স্মার্টফোন গুলির একটি প্রধান বিশিষ্ট।

স্মার্টফোন ব্যবহারের সুবিধা – স্মার্টফোনের বহুমুখী ব্যবহার

স্মার্টফোনগুলি আমাদের প্রতিদিনের জীবনের সঙ্গী হয়ে উঠেছে। আমাদের সাথে যদি আপনার স্মার্টফোন না থাকে, তবে শূন্যতা বোধ করেন। এ ছাড়া ডিজিটাল সাক্ষরতার কারণে স্মার্টফোনের ব্যবহার বেড়েছে এবং এর মাধ্যমে প্রচুর কাজ করা হচ্ছে। যে কারণে স্মার্টফোনগুলি আমাদের জন্য দরকারী হয়ে উঠছে।

  • কলিং বা ফোন-কল – এই সুবিধা টি সর্বাধিক ব্যবহৃত হয়। এবং ঠিক একটি সাধারণ ফোনের মতো কল করতে পারি। স্মার্টফোন দিয়ে আমরা ভিডিও কলিংয়ের সুবিধাও পাই।
  • SMS, ইমেলগুলি প্রেরণ করা – আপনি আপনার স্মার্টফোনের মাধ্যমে sms পাঠাতে পারেন , অথবা কম্পিউটারের মতো ইমেলও পাঠাতে পারেন এবং আপনার কাছে আসা কোন ইমেল পড়তে পারেন।
  • মানচিত্র এবং জিপিএস ব্যবহার এর সুবিধা – প্রায় সমস্ত স্মার্টফোনে মানচিত্র এবং জিপিএস ব্যবহার করার সুবিধা আছে। যাতায়াতের সময় আপনি এর সুবিধা নিতে পারেন। আপনি যদি কোনও নতুন জায়গায় খুঁজে পাওয়ার জন্য স্মার্টফোনের চেয়ে ভাল গাইড আর নেই।
  • মোবাইল ব্যাংকিং – আধুনিক সময়ে আপনি স্মার্টফোনে ব্যাংকিংয়ের কাজও করতে পারেন।
  • বিল পরিশোধ, টিকিট বুকিং, রিচার্জ – স্মার্টফোনের মাধ্যমে আপনি ঘরে বসে বিদ্যুৎ, জল, গ্যাস, টেলিফোন, ইন্টারনেট ইত্যাদি বিল দিতে পারবেন। যদি কাজে বাইরে যেতে হয়। তারপরে আপনি কেবল স্মার্টফোনের মাধ্যমে আপনার ট্রেন, বাস, বিমানের টিকিট বুক করতে পারবেন। এর বাইরে আপনি মোবাইল রিচার্জ, ডিটিএইচ রিচার্জও করতে পারেন।
  • বিনোদন – স্মার্টফোনগুলি তে সহজেই গান সুনতে পারেন। আপনার পছন্দ ফিল্ম চালাতে পারেন। আপনি ভিডিও গেম খেলতে পারেন। আপনার পছন্দ মত বিনোদন। স্মার্টফোন আপনাকে সরবরাহ করতে পারে।
  • ফটো তলা এবং ভিডিও তৈরি করা – আপনার যদি স্মার্টফোন থাকে তবে আপনাকে আলাদাভাবে ডিজিটাল ক্যামেরা কেনার দরকার নাই। প্রায় সব স্মার্টফোনে ক্যামেরা রয়েছে। যার মাধ্যমে আপনি ফটো তুলতে এবং ভিডিও করতে পারেন।
  • ইন্টারনেটের ব্যবহার – আজ কম্পিউটারের চেয়ে মোবাইল বেশি মোবাইল ব্যবহার করে। এবং আধুনিক স্মার্টফোনটির সাহায্যে আপনি কম্পিউটারের মতোই ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারেন। যার মাধ্যমে আপনি যে কোনও সময়, যে কোনও জায়গায় নিজের জন্য দরকারী তথ্য সন্ধান করতে পারেন।
  • দরকারী অ্যাপ্লিকেশন – স্মার্টফোনের জন্য অনেকগুলি দরকারী অ্যাপ তৈরি করা হচ্ছে। যেমন হোয়াটসঅ্যাপ, ক্রোম ব্রাউজার ইত্যাদি যার মাধ্যমে আপনি প্রতিদিনের অনেকগুলি কাজ করতে পারেন। গুগল প্লে স্টোরে পাওয়া যায় এমন 1 লক্ষেরও বেশি অ্যাপ রয়েছে।

স্মার্টফোন অপারেটিং সিস্টেম

হ্যাঁ। ডেস্কটপ বা ল্যাপটপ কম্পিউটারের মতোই একটি স্মার্টফোনেও, উইন্ডোজ বা ম্যাকোসের মতো একটি অপারেটিং সিস্টেম থাকে। চারটি প্রধান স্মার্টফোন অপারেটিং সিস্টেম হ’ল 

  • iOS (আইওএস) যা অ্যাপল দ্বারা নির্মিত
  • Android (অ্যান্ড্রয়েড) যা গুগল দ্বারা নির্মিত
  • Blackberry OS (ব্ল্যাকবেরি) যা গবেষণা ইন মোশন দ্বারা নির্মিত
  • Windows phone OS (উইন্ডোজ ফোন) যা মাইক্রোসফ্ট দ্বারা নির্মিত

মোবাইলের অপারেটিং সিস্টেম কি ?  

একটি মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম (মোবাইল ওএস) একটি ওএস যা কেবলমাত্র একটি মোবাইল ডিভাইসের জন্য নির্মিত, যেমন smartphone, personal digital assistant (PDA), tablet বা অন্যান্য এমবেডেড মোবাইল ওএস। 

“মোবাইল ফোনের অপারেটিং সিস্টেম” প্রধানত মোবাইল এর যন্ত্রাংশ গুলিকে (random access memory (RAM), storage and central processing unit (CPU)) ঠিক মত কাজ করার নির্দেশ দেয় এবং অপর দিকে mobile device environment এর সাথে ফোনটিকে তাল মিলিয়ে কাজ করতে সাহায্য করে।

অ্যান্ড্রয়েড কি ?

অ্যান্ড্রয়েড একটি লিনাক্স ভিত্তিক এবং ওপেন সোর্স অপারেটিং সিস্টেম যা মূলত স্মার্ট ফোন এবং ট্যাবলেট কম্পিউটারের মতো টাচ স্ক্রিন মোবাইল ডিভাইসের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে।

অ্যান্ড্রয়েড গুগল এবং অন্যান্য সংস্থার নেতৃত্বে ওপেন হ্যান্ডসেট অ্যালায়েন্স দ্বারা বিকাশ করা হয়েছিল।

  • Android Mobile root – অনেকেই android phone root করে ফোনের দায়িত্ব নিজের হাতে নিতে পছন্দ করেন এবং এর মাধ্যমে ফোনের সমস্ত component গুলোকে নিজের মতন ব্যবহার করা যায় ।
  • Android OneAndroid one এর মূল উদ্দেশ্য হল, কম দামি ফোন গুলকে ব্যবহার কারির কাছে গ্রহন যোগ্য করে তলা।
  • Android Phone এর Features Check – অন্য কারোর কাছে না শুনে, নিজাই নিজের Phone এর Features কি ভাবে Check করবেন?

অ্যান্ড্রয়েড এপ্লিকেশন কি ?

অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ বা অ্যাপ্লিকেশান হ’ল একটি সফ্টওয়্যার অ্যাপ্লিকেশন যা অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস গুলিতে চালান যায়।

Android applicationsগুলি সাধারণত Android Software Development Kit ব্যবহার করে Java ভাষায় তৈরি করা হয়।

একবার তৈরি হয়ে গেলে, অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশনগুলি সহজেই প্যাকেজ করা যায় এবং Google Play, SlideME, Opera Mobile Store, Mobango, F-droid এবং the Amazon Appstoreএর মতো স্টোরের মাধ্যমে বিক্রি করা যায় ।

অ্যান্ড্রয়েড বিশ্বের 190 টিরও বেশি দেশে কয়েক মিলিয়ন মোবাইল ডিভাইসে ব্যবহার হয়। প্রতিদিন বিশ্বব্যাপী 1 মিলিয়নেরও বেশি নতুন অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস সক্রিয় হয়।

  • Fast charging – কোন কোম্পানির ফাস্ট চার্জার সবথেকে ভালো। সেটা জানের থেকেও বেশি দরকারি হল এ ফাস্ট চার্জার কিভাবে কাজ করে? এবং সব ফোনে কি ফাস্ট চার্জার ব্যবহার করা যায়?
  • USB OTG – USB device গুলি খুব সুবিধাজনক, তবে যদি আপনি জানেন USB OTG কি তবে এগুলো কে আপনি আপনার ফোনের সাথে ব্যবহার করতে পারেন।
  • Multitasking – Powerful মোবাইলের বড় সুবিধা মাল্টিটাস্কিং, একসঙ্গে অনেক কাজ করে সময় বাঁচানো ।